SEO Bangla Blog 2020 Powered by Bondhu Tech IT

seo
seo

SEO কি ?

আপনার ওয়েবসাইট এস ই ও (SEO) করতে  হলে আগে  বুজতে হবে এস ই ও কি ভাবে করতে হয় কেন করতে হয় ।  এস ই ও এর ফুল মিনিং হলো সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন
একটা সাইট এর জন্য  এস ই ও কত টা জরুরি তা জানতে হবে। এস ই ও (SEO industry ) অনেক বড় একটা বিষয় । এটা কোন সাধরন ব্যাপার না । এই টা শিখতে অনেক সময় লাগে । এস ই ও এর কাজ কখন শেষ করতে পারবেন না কারন এই কাজ সার্চ ইঞ্জিন রিলেটেড । সার্চ ইঞ্জিন প্রতিনিয়ত আপডেট হয় তাই এই কাজ ও আপডেট হয়। Bondhu Tech IT এর পক্ষ থেকে আপনাদের সকল বিশয় কিলিয়া করে দেওয়া হবে ।

On Page SEO কি এবং কিভাবে কাজ করে ?

আপনি জদিও এস ই ও এর কাজ করতে চান তাহলে আপনার কাজই হবে কনটেন্ট কে সার্চ ইঞ্জিন এর জন্য অপ্টিমাইজ করা । এই অপটিমাইজেশন পদ্ধতি দুই ধরনের হইয়ে থাকে একটি হল অপ পেজ আরেক্ টি অন পেজ এস ই ও(SEO).অন পেজ হল গুগল অন পেজ হলো, গুগল যে ধরনের আর্টিকেল পছন্দ করে তেমন করে লেখা আর অপ পজ হলো, অন্য কোন ওয়েব সাইটের সাথে আপনার সাইটকে সংযুক্ত বা ব্যাকলিংক করা।

কোন বাক্তি যেন  কোন তথ্য গুগল এ সার্চ করে সঠিক টা খুজে পায় এই জন্য প্রতেক সার্চ ইঞ্জিন এর কিছু বোট আছে । যে গুলো সবসময় এই গুলো দেখাশুনা করে । এই বোট গুলর কাজ হচ্ছে সঠিক  তথ্য ভিজিটরের সামনে নিয়ে আসা। কিছু বিষয় আসে যে গুলা পর্যালোচনা করে যেমন

ইউনিক কন্টেন্ট, সাইট এর ডিজাইন, সাইটের স্ট্রাকচার ইত্যাদি বিষয় দেখে থাকে । এক কথায় একটা সাইট এর মানদণ্ডর উপর নির্ভর করে সাইট কে ফলাফল হিসাবে ঐ সাইট এ দেওয়া তথ্য কে সামনে নিয়ে আসে । অর্থাৎ কোনো ওয়েব সাইটকে সার্চ রেজাল্টের উপরের দিকে নিয়ে আসার জন্য যে প্রক্রিয়া অবলম্বন করা হয়, সেটিকে এসইও বলে।

যখন একটা সাইট উপর এর দিকে থাকে তখন ভিসিটর ও বেড়ে যায় । জার ফলে ঐ কোম্পানি এর আয় ও বেড়ে যায় তাই নিজের ওয়েবসাইট এর জন্য সবাই এস ই ও করে ।

২০২১ এ ব্লজ্ঞিং অনেক টা কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। কারন আমরা সঠিক ভাবে এস ই ও করতে পারি না । তাই অনেক প্রবলএম হয় । যদি সঠিক ভাবে একটা ওয়েবসাইট কে সার্চ ইঞ্জিন এর জন্য প্রচ্বুত করা হয় তাহলে কম সময় এর মধ্যে রাংকিং করা যায় ।

শুধু ইউনিক কন্টেন্ট লিখে এবং সঠিক এস ই ও অপটিমাইজেশন টেকনিক গুলির ব্যবহার করেই, গুগল সার্চ থেকে ট্রাফিক পেতে পারবেন।

মনে রাখতে হবে আপনি অন পেজ এ যত ভাল করবেন আপনের সাইট এ তত ভিজিটর আসবে গুগল থাকে । আতাই হল অন পেজ এস ই ও কাজ ।

এই কাজ গুলো সুদু মাত্র ব্লগ বা কন্টেন্ট এর ভিতরেই সিমাবধ থাকে । এই টেকনিক গুলো কে অন পেজ এস ই ও টেকনিক (on page SEO technique) বলে ।

এই টেকনিক গুলা ব্যবহার করলে সার্চ ইঞ্জিন গুলো ব্লগ বা সাইট বিষয় এ ভাল ভাবে বুজতে পারে ।

২০১৩ সালের দিকে শূধু বাচক্লিঙ্ক অ্যান্ড কীওয়ার্ড (keyword) এর প্রচুর ব্যবহার করা হত যা ২০২১ সালে এর চলবে না । তাই এখন কীওয়ার্ড (keyword) সীমিত আকারে ব্যবহার করে এবং জরুরি কিছু জায়গায় স্বাভাবিকভাবে ব্যবহার করতে হবে।

একেই এস ই ও(SEO Friendly) ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল বলে

1. Content optimization for search intent

আগে অন পেজ এর কাজ করা হত টার্গেট কীওয়ার্ড (keyword) সেট করা যা এখন আর চলে না ।এখন গুগল সার্চ ইঞ্জিন বোট (search engine bots) গুলো অনেক উন্নতি হয়ছে তাই এগুল কুব সহজেই ধরে ফেলে । একজন ইউজার বা ভিসিটর গুগল এ সার্চ দিয়ে কি জানতে চাচ্ছে ঐ অনুযায়ী আর্টিকেল লিখতে হবে । সবচে আগে আর্টিকেল এর সাথে জরিত শব্দ, বাক্য  লিখে রাখতে হবে যা পরবর্তীতে ব্যবহার করতে হবে ।

নিছে কিছু  বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হল

মনে করুন আমি একটা আর্টিকেল লিখছি “ how to learn seo in bangla” বিষয় নিয়ে । এখন আমি যদি বার বার এই কিওয়ার্ড টি ব্যবহার করে

এস ই ও ফ্রেন্ডলি আরটিকাল লেখার চেষ্টা করি তাহলে ২০২০ এ এই টা ভুল হবে ।কারন  এই ধরণের আর্টিকেল গুলিকে গুগল “low quality” এবং “over optimized content” বলে ভেবে নেয়। তাই ভবিষ্যতে এই আরটিকেল থেকে কোন ভিসিটর সাইট এ আসবে না ।

এখন আমি তোমাদের কে বলব আমি কি ভাবে আমার আরটিকেল গুলো অপ্টমাইজ করি ।

আমি যদি “এস ই ও কিভাবে শিখব” এই কিওয়ার্ড নিয়ে একটা আরটিকেল লিখি তাহলে  এটা বার বার না লিখে রিলেটেড কিওয়ার্ড বা শব্দ ব্যাবহার করি ।

 যেমন, “এসইও কি”, “এসইও বাংলা টিউটোরিয়াল”, “অন পেজ এসইও কাকে বলে”, “এসইও কিভাবে করতে হয়”, “search engine optimization”, “এসইও টিপস”, “বাংলা এসইও কোর্স” এবং এভাবেই আরো অনেক আলাদা আলাদা কীওয়ার্ড ব্যবহার করি।

৩ টি অনেক বড় লাভ হবে যদি আপনি এই ভাবে আর্টিকেল লিখেন

 এতে সুবিধা হল গুগল বোট এটা খুব সহজে বুজতে পারে যে আর্টিকেল টা কোন টপিক এর উপর লেখা হইছে

যেহেতু আর্টিকেল টা SEO related তাই এস ই ও এর বিভিন্ন জাইগা তে এই টা রাঙ্ক করবে

এখানে আপনি যদি একটা কি ওয়ার্ড বার বার ব্যবহার না করেন তাহলে over keyword optimization হবে না

2. Page loading speed improve

বর্তমানে  ৮০% ব্লগার তাদের ওয়েবসাইট এর লডিং স্পীড নিয়ে কোন মাথা বাথা নাই । আচ্ছা আপনি যখন গুগল এ সার্চ দেন তখন কি কোন ওয়েবসাইট লোড হতে সময় লাগে তাহলে কি ঐ সাইট এ বেশিক্ষণ থাকেন । না থাকেন না কারন আমরা সবাই খুব বেশি গতি তে ওয়েবপেজ ভিসিট করতে পছন্দ করি । গুগল ও এটাই পছন্দ করে । তাই Page loading speed কে seo factor হিসাবে ধরা হয় ।

তাই সবচেয়ে আগে Page loading speed চেক করতে হবে ।

ব্লগ বা ওয়েবসাইটের পেজ লোডিং স্পিড চেক করার জন্য আপনারা, “Google page speed insights“ ব্যবহার করতে পারবেন।

যদি ৩ সেকেন্ড এর বেশি হয় লডিং স্পীড তাহলে এই বিষয় টা নিয়ে আপনাকে কাজ করতে হবে ।

ওয়েবসাইটের পেজ লোডিং স্পিড দ্রুত করার জন্য কিছু পরামর্শ দেওয়া হল এই কাজ গুলো আপনি করতে পারেন

১ ব্লগ এ ছবি আপলোড দেওয়ার আগে ইমেজ কমপ্রেস করে নিতে হবে  এই সাইট টি দিয়ে tinypng.com

২ ছবি এর সাইজ যত কম হবে তত ভাল ব্লগ এর জন্য ৫০ কেবি এর নিচে রাখার চেষ্টা করতে হবে।

৩ ভাল মানের হস্টিং সাভিস নিতে হবে তাহলে পেজ এর লোড স্পীড বেড়ে যাবে

৪ একটা হালকা পরিষ্কার থিম ব্যবহার করতে হবে

৫ ব্লগ সাইট ওয়ার্ডপ্রেস এ হলে  caching plugin ব্যবহার করতে হবে

এই ছোট ছোট টেকনিক যদি আমরা ব্যবহার করি তাহলে ব্লগ এর লোড স্পীড বেড়ে যাবে এমনি তেই ।

3. Used targeted focus keyword in article

বার বার ফোকাস কি ওয়ার্ড ব্যাবহার করা খারাপ কিন্তু কিছু জাইগাতে এই কি ওয়ার্ড গুলো ব্যবহার করলে অনেক লাভ হয় ।

সবচেয়ে আগে টাইটেল (title )এ  ব্যবহার করতে হবে

Link এ অর্থাৎ Permalink url এ কীওয়ার্ডটি ব্যবহার করতে হবে।

আর্টিকেল এর প্রথমে যে  প্যারাগ্রাফ থাকবে ঐ জাইগাতে এক বা দুই বার এই কি  ওয়ার্ল্ড দিতে হবে

H2, H3 এবং H4 TAG গুলির মধ্যে এক থেকে দুবার লক্ষ্যবস্ত কীওয়ার্ড এর ব্যবহার করা লাগবে  

4. image এ alt tag এর ব্যবহার

আমরা যে ইমেজ গুলো ব্যবহার করে থাকি তা গুগল সরাসরি বুজতে পারে না ।গুগল কে বুজানর জন্য এই alt tag এর ব্যবহার করা হয়

এই ট্যাগ ব্যবহার র ফলে গুগল ইমেজ সার্চ থেকে ও ট্রাফিক আস্তে পারে । image alt tag/text গুলির জায়গায় নিজের targeted focused keyword গুলি ব্যবহার করে, কনটেন্টটি অধিক ভালো করে SEO optimize করা যায়

5.Simple & readable content

সবচেয়ে প্রথমে এই দিকে নজর দিতে হবে কারন ভিসিটর রা সেরা মানের কন্টেন্ট পরতে পছন্দ করে । তাই সহজ সরল ভাষাতে লিখতে হবে।

যদি আর্টিকেলএ লেখা খারাপ হয় তাহলে ভিসিটর কিছু সময় থাকবে এর ফলে সাইট এর উপর একটা খারাপ প্রভাব পরবে । যাকে এস ই ও এর ভাষা তে high bounce rate বলা হয় । SEO র ক্ষেত্রে  এই টা খুবই খারাপ দিক।

এইজন্য আর্টিকেল লেখার সময় রুচিশীল ভাবে লিখে হবে যেন ভিসিট্র পড়ে মজা পায়।

6. internal linking এর ব্যবহার

প্রত্যেক আর্টিকেল এ কিছু লিংক দেখতে পাবে এই লিংক গুলো কে ইন্টারনাল এবং এক্সটারনাল লিংক বলে । এখন আমি ইন্টারনাল লিংক নিয়ে কথা বলবো

আপনি যে বিষয় এ আর্টিকেল লিখবেন ঐ রিলেটেড আরও পোস্ট থাকলে আপনি এই আর্টিকেল এর মাঝে মাঝে লিংক করে দিবেন এতে আপনার সাইট এ ভিসিটর বেশি সম সময় থাকবে এর ফলে সাইট এর bounce rate কমে যাবে।

SEO র ক্ষেত্রেও খুব লাভজনক এটা ।

7. Regular article posting

ব্লগ এ নিয়মিত আর্টিকেল পাবলিশ করত হবে । প্রতি মাসে আপনি কয় টা আর্টিকেল পাবলিশ করেন সে বিষয় এ লক্ষ রাখতে হবে । কারন গুগল রেগুলার ভালো ভালো high quality articles পাবলিশ করা পছন্দ করে ।

এই কাজ গুলো অন পেজ এস ই ও এর ক্ষেত্রে করতে হবে ।

এবার অপ পেজ নিয়ে কিছু কথা বলি

অফ পেইজ অপটিমাইজেশন কি?

Link building এর অপর নাম অপ পেজ এস ই ও । সার্চ ইঞ্জিন এ কোন ওয়েবসাইট কে প্রথমে আনার জন্য ঐ একই রকম সাইট র সাথে সম্মপক করতে হয় এটাকে অফ পেজ এস ই ও বলে

অফ পেইজ অপটিমাইজেশন এর সুবিধা গুলো

অফ পেজ অফ পেইজ অপটিমাইজেশন এর সুবিধা অনেক

১ এই টা করে সাইট এর রাঙ্ক বাড়ানো যায়

২ সাইট এ অনেক ভিসিটর আনা যায়

অফ পেইজ অপটিমাইজেশন এর আরও উপকারিতা আছে । অন্য কোন দিন আলোচনা করব ।

সবাই কে অসংখ্য ধন্যবাদ , দরজো ধরে পুরা ব্লগ পরার জন্য

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Share via
Copy link
Powered by Social Snap